সৌন্দর্যের লীলাভূমি সিলেটের বিছনাকান্দি

সারি সারি নীল পাহাড়ের কোলে পাথর বিছানো বিস্তীর্ণ এলাকায় জলের ছুটাছুটি। পাহাড়ের বুক চিরে কুল কুল শব্দে বয়ে চলছে শীতল জলের স্রোত।যা আপনাকে দু হাত প্রসারিত করে আলিঙ্গন করবে। প্রকৃতির সৌন্দর্যে শোভিত অপরূপ এই লীলাভূমির নাম বিছনাকান্দি। প্রকৃতির অসাধারণ রূপ-লাবন্যে ঘেরা স্থানটি ৩৬০ আউলিয়ার দেশ সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় অবস্থিত। বর্ষার দিনে বিছনাকান্দি পূর্ণ যৌবন লাভ করে। যাতায়াত হয় অনেক সহজ। গরমের অস্বস্তি থেকে প্রকৃতির কোলে শান্তি পেতে চাইলে আপনিও ঘুরে আসতে পারেন বিছনাকান্দি থেকে। সিলেটের স্বর্গীয় বিছানা নামে বিছনাকান্দিতে আপনি পেতে পারেন প্রকৃতির মনোরম স্পর্শ।

কীভাবে যাবেন?
বিছনাকান্দির এমন সৌন্দর্য বর্ষা চলে গেলে বা পানি কমে গেলে আর থাকেনা। তখন এটা দেখতে একটা মরুদ্যান মতো লাগে। পাথর বহন করার জন্য এখানে চলে অজস্র ট্রাক আর ট্রাকটর। সুতরাং অক্টোবর পর্যন্ত বিছনাকান্দি যাবার মোক্ষম সময়। মন চাইলে এখনি চলে যেতে পারেন।
ঢাকা থেকে প্রথম আপনাকে সিলেট শহরে যেতে হবে। তারপর সেখান থেকে বিছনাকান্দি যাবার কয়েকটা পথ রয়েছে। আপনি চাইলে নদী পথে যেতে পারেন। আবার সড়কপথে নিজস্ব বাহন, সিএনজি চালিত অটো রিকসা কিংবা লেগুনা ভাড়া করে দল বেঁধে যেতে পারেন। নদী পথে গেলে আপনাকে প্রথমে যেতে হবে পাংখুমাই। সেখান থেকে ট্রলারে চেপে বিছনাকান্দি। পাংখুমাই হয়ে বিছনাকান্দি গেলে বাড়তি পাওনা এখানকার বিশাল ঝর্না আর পিয়াইন নদীর অপরূপ রূপসূধা। পাংখুমাই যেতে সময় লাগে দেড়ঘন্টা। সেখান থেকে বিছনাকান্দি আরও দেড় থেকে দুই ঘণ্টার পথ। সড়কপথ হলে সিলেট শহর থেকে যে কোন বাহনে চেপে চলে যান হাদারপার বাজার। সেখান থেকে নৌকায় বিছনাকান্দি। যেভাবেই যাননা কেন হাদারপার বাজারে গনি মিয়ার ভূনা খিঁচুড়ি খালি পেটে অমৃত সুখ দেবে আপনাকে। তবে আপনার জন্য আমাদের পরামর্শ সড়ক পথে বিছনাকান্দি যাওয়া। সেক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে হাদারপার খেঁয়াঘাটে নৌকার মাঝিরা যাচ্ছেতাই ভাড়া চাইবে। দরদাম ঠিক করে কমপক্ষে তিন ঘণ্টার জন্য হাদারপার থেকে নৌকা ভাড়া নিয়ে তবেই বিছনাকান্দির পথ ধরুন। ভাড়া ৮০০টাকার বেশি নয়।

আপনি যদি রাতের বাসে ঢাকা থেকে সিলেটের বাসে চড়েন। তাহলে সকালেই আপনাকে শহরে নামিয়ে দিবে। দিনটি যদি মেঘাবৃত আকাশ আর বৃষ্টিঝরা দিন হয়, তাহলে আপনি খুবই সৌভাগ্যবান! কারণ দিনটি এমন না হলে বিছনাকান্দির সৌন্দর্য ঠিক বোঝা যাবেনা! সিলেট থেকে সকালে বৃষ্টির মধ্যে রওনা দিতে পারলে আপনার মন খুশিতে নেচে উঠবে। বিছনাকান্দি যাওয়ার পথে আপনি মালিনিছড়া চা বাগান, সালুটিকর আর বিমান বন্দর রোড হয়ে দেড় ঘণ্টায় পৌঁছে যেতে পারবেন হাদারপার বাজার। এখানে খানিকক্ষণ বিশ্রাম নিতে পারেন। তারপর হাদারপার বাজারের বিখ্যাত ভূনা খিচুরী খেয়ে হাদারপার খেয়াঘাট থেকে নৌকায় চেপে বিছনাকান্দি যেতে পারেন। নৌকা আপনাকে নিয়ে যতই বিছনাকান্দির দিকে যাবে ততই আপনার কাছে মনে হতে থাকবে বিছনাকান্দির সৌন্দর্যছটা যেন উপচে বের হচ্ছে। সঙ্গে মিলেমিশে একাকার নদীর এপার -ওপারের অপার সৌন্দর্য। এভাবেই ঠিক পনের মিনিট পর আপনি পৌঁছে যাবেন বিছনাকান্দি।

বিছনাকান্দির সৌন্দর্য এতটাই বিস্ময়কর যে চোখে না দেখলে কল্পনাও করতে পারবেন না । কাছেই দাঁড়িয়ে মেঘে ঢাকা মেঘালয় পর্বতমালা আর সে পাহাড় থেকে প্রবাহিত শীতল ঝর্নাধারার তীব্র প্রবাহ। এখানে পাথরে ভরা পুরো এলাকা। পানিতে বিছানো রয়েছে ছোট-বড় অসংখ্য পাথর। সে সব পাথরের কোনোটাতে মোটা ঘাসের আস্তরণ। আবার কোনোটা বা ধবধবে সাদা।এ সব পাথর মেঘালয় পর্বতমালার ওপর থেকে প্রবাহিত ঝর্নার ধারায় চলে এসেছে পিয়াইন নদীর বিছনাকান্দি অংশে। এই সুন্দর্য যত দেখবেন ততই মুগ্ধ হবেন। ঝাঁপিয়ে পড়তে ইচ্ছে করবে পাথর ভরা পিয়াইন নদীর শীতল জলে। শরীর এলিয়ে দিয়েই পাথর জলের বিছানায় আপনার মনে হবে, আহা কী শান্তি! যে বিছানা ছেড়ে হয়তো উঠতে ইচ্ছে করবে না আপনার!

Please follow and like us:
0

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

CAPTCHA


error: Content is protected !!